বর্তমান, পুরো বিশ্বে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স অর্থাৎ কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার চর্চা চলছে। বিভিন্ন AI মডেল গোটা বিশ্বে এক আলোড়ন তৈরি করে দিয়েছে। এগুলিকে টক্কর দেওয়ার জন্য google লঞ্চ করেছিল Google bard নামক একটি AI মডেল । কিন্তু তবুও অনেক AI মডেলের বড়ত্বভাব কম হচ্ছিল না। তাই গুগল আরও একটি অনেক বেশি পাওয়ারফুল AI লঞ্চ করেছে, যেটির নাম Gemini রাখা হয়েছে। এটি একটি মাল্টি মডেল আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স।

Images by pexels.com

Google তার আগে লঞ্চ করা bard কেও এই AI মডেলের সঙ্গে সংযুক্ত করেছে। শোনা যাচ্ছে যে, google এর Gemini AI, অন্যান্য যে সমস্ত AI মডেল বর্তমানে এভেলেবেল রয়েছে সেগুলিকে খুব ভালোভাবে টক্কর দিয়ে এগিয়ে যেতে পারবে।

মিডিয়া রিপোর্ট অনুসারে, বিশ্বে Bard এবং pixel এর যে সমস্ত ব্যবহারকারী রয়েছে, বিশেষত তাদের জন্য খুব জলদিই Gemini এভেলেবেল হবে। এটি খুবই advance AI সিস্টেম হবে। এবং রিয়েল টাইমে মাল্টিটাস্কিং করতে পারবে। এটি এতটাই শক্তিশালী যে টেক্সট, ইমেজ, কোডিং এবং ভিডিওর ক্ষেত্রে একই সময় কাজ করতে পারবে।

এই Gemini AI মডেল পাবলিকদের জন্য তিনটি ভেরিয়েন্টে পাবলিশ করা হবে । প্রথম হল Gemini ultra variant, দ্বিতীয়টি হল Gemini pro variant, এবং তৃতীয়টি হল Gemini nano variant.

আল্ট্রা ভেরিয়েন্ট খুব বড় বড় টাস্ক কমপ্লিট করতে পারবে। বর্তমানে প্রো ভ্যারিয়েন্ট উপলব্ধ রয়েছে ব্যবহারকারীদের জন্য। এবং আল্ট্রা ভেরিয়েন্ট ২০২৪ সালের প্রথমের দিকে পাবলিশ করা হবে বলে জানানো হয়েছে।

প্রথমে এটি ইংরেজি ভাষায় ব্যবহারের জন্য উপলব্ধ থাকবে, এবং ১৭০ টিরও বেশি দেশে এটি ব্যবহারের জন্য উপলব্ধ করা হবে। পরবর্তীকালে বাংলা সহ অন্যান্য ভাষাকেও যুক্ত করা হবে। একটি মিডিয়া রিপোর্ট অনুযায়ী, এই আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সকে সাধারণ মানুষের মতো ব্যবহার করার জন্যই ডিজাইন করা হয়েছে। অর্থাৎ অনেক ক্ষেত্রে মানুষের মতই কাজ করবে। এটি কোন জিনিসকে দেখে আইডেন্টিফাই করতে পারবে।

কোম্পানির তরফ থেকে জানানো হয়েছে, ১৩ই ডিসেম্বর থেকে ডেভলপার এবং এন্টারপ্রাইজ কাস্টমাররা Pro ভেরিয়েন্টকে ব্যবহার করতে পারবে। কোম্পানির মতে এটি আজ পর্যন্ত আবিষ্কৃত সবচেয়ে পাওয়ারফুল AI মডেল।

👉 Gemini ultra variant

এটি বাকি দুটি ভেরিয়েন্টের তুলনায় অধিক শক্তিশালী। এটি মাল্টি ল্যাঙ্গুয়েজ আন্ডারস্ট্যান্ডিংয়ের ক্ষেত্রে মানুষের থেকেও বেশি ক্ষমতা সম্পন্ন। এটি ৫৭ টি সাবজেক্ট কম্বিনেশনের ক্ষমতাধারী। যেমন গণিত, ফিজিক্স, কেমিস্ট্রি, বায়োলজি, আইন, মেডিকেল সহ একাধিক সাবজেক্টের প্রবলেমকে সলভ করতে পারবে।

বিশ্বে যে সমস্ত প্রোগ্রাম ল্যাঙ্গুয়েজ রয়েছে যেমন Python, Java, C++, ইত্যাদিকে বুঝতে পারবে। এবং বিভিন্ন কোডিংকে ডিকোড করে উপস্থাপন করতে পারবে।

তবে বর্তমানে এই আল্ট্রা ভেরিয়েন্ট ট্রায়াল মোডের জন্য কিছু কিছু ইউজারদের জন্য উপলব্ধ রয়েছে।

👉 Gemini pro variant

এটি আল্ট্রা ভেরিয়েন্টের থেকে কিছুটা কম ক্ষমতা সম্পন্ন। এই ভেরিয়েন্টকে যে কেউ সাধারণ ব্যক্তি ব্যবহার করতে পারবেন গুগল বার্ডের ( Bard ) মাধ্যমে। এর সাহায্যেও বড় বড় টাস্কও কমপ্লিট করা যাবে।

👉 Gemini Nano variant

এটি তিনটি ভেরিয়েন্টের মধ্যে সর্বনিম্ন ক্ষমতা সম্পন্ন একটি Gemini AI ভেরিয়েন্ট। তবে এটি অন্যান্য ভেরিয়েন্টের মতোই প্রায় অনেক কাজই করতে পারবে। এটি মোবাইল অপারেটেবল ভেরিয়েন্ট । অর্থাৎ এই ভেরিয়েন্টকে আপনি আপনার অ্যান্ড্রয়েড মোবাইলে ব্যবহার করতে পারবেন। বর্তমানে গুগলের pixel 8 pro মোবাইলেতে এই ন্যানো ভ্যারিয়েয়েন্টকে যুক্ত করা হয়েছে। পরবর্তীকালে অন্যান্য কোম্পানির অ্যানড্রয়েড ডিভাইস গুলিতেও এই ন্যানো ভেরিয়েন্টকে অ্যাড করা হবে।

বর্তমানে Gemini AI মডেলকে গুগল সার্চ ইঞ্জিনের সঙ্গে সংযুক্ত করা হচ্ছে না। কিন্তু পরবর্তীকালে এই AI মডেলকে গুগল সার্চ ইঞ্জিনের সঙ্গে সংযুক্ত করা যেতে পারে। এর ফলে যখন google এ কিছু সার্চ করা হবে, তখন সেই সার্চ টপিককে শর্ট আকারে রেজাল্ট দেখিয়ে দেওয়া হবে। এবং অন্যান্য AI মডেলের তুলনায় খুব জলদি রেজাল্ট ব্যক্তিদের সামনে উপস্থাপন করা হবে জানানো হয়েছে।

তাছাড়া বর্তমানে বিভিন্ন ধরনের ডিপ ফেক ফটো এবং ভিডিও বিভিন্ন AI মডেলের দ্বারা তৈরি করা হচ্ছে। এর ফলে মানুষের ডাটা সিকিউরিটির সমস্যা দেখা দিচ্ছে। এই সমস্ত বিষয়ের প্রতি লক্ষ্য রেখে গুগুলের Gemini AI মডেল তৈরি করা হচ্ছে। এবং google এর তরফ থেকে এও জানানো হয়েছে, বর্তমানে ফেক জেনারেটেড ফটো এবং ভিডিও নিয়ে যে সমস্যা দেখা দিচ্ছে সেগুলোর প্রতি লক্ষ্য তো রাখা হচ্ছেই, এমনকি পরবর্তীকালে আরও যে সমস্ত ফেক বিষয়গুলি সামনে আসবে সেগুলোর প্রতিও লক্ষ্য রাখা হবে।

গুগলের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, এই Gemini AI মডেলকে গুগলের internal team পর্যবেক্ষণ তো করছেই, এর সঙ্গে বাইরের পার্টনার ডেভেলপারদেরও এই মডেলটি টেস্টের জন্য দেওয়া হয়েছে। যাতে এর মধ্যে কোন সমস্যা অথবা কমতি থাকলে তা যেন খুঁজে বার করে। যাতে করে এই Gemini AI মডেলকে আরো ইম্প্রুভ করা যায়।

Conclusion

এখন প্রশ্ন জাগতে পারে, আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স যদি মানুষের সমস্ত কাজ করে দেয় তাহলে মানুষের কি হবে? মানুষকে তাদের কি কাজ হারাবে? বেকারত্ব কি বেড়ে যাবে? এখন এটাই হচ্ছে ভাববার বিষয়। তবে আশা করা যায় যতই আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স আবিষ্কার হোক না কেন, মানুষের কিন্তু সমপরিমাণে প্রয়োজন থেকেই থাকবে। কারণ আর্টিফিশিয়াল যতই কাজ করুক না কেন, সঠিকভাবে সম্পন্ন হয়েছে কিনা তা যাচাই করার জন্য হিউম্যানের অবশ্যই প্রয়োজন।

FAQ

Gemini কি?

Gemini হল গুগলের তৈরি করা একটি বিশেষ শক্তিশালী আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স। এটি ২০২৩ সালের ডিসেম্বর মাসে লঞ্চ করা হয়।

Gemini কয়টি ভেরিয়েন্ট রয়েছে ও কি কি?

Gemini এর তিনটি ভেরিয়েন্ট রয়েছে। সেগুলি হল আল্ট্রা ভেরিয়েন্ট, প্রো ভেরিয়েট এবং ন্যানো ভেরিয়েন্ট।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *